Sunday, April 14, 2024

আবারো শিশুর মৃত্যু, বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না উখিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে

উখিয়া প্রতিনিধি :

উখিয়ার প্রায় তিন লাখ নাগরিক স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার সরকারি প্রতিষ্ঠান ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, যাকে ঘিরে বিতর্ক যেনো থামছেনা।

শেষ হতে চলা ২০২৩ এ আবারো এই প্রতিষ্ঠানে কর্মরত চিকিৎসকের অবহেলার কারণে শিশু মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

এঘটনায় মৃত্যুবরণ করা রাকিবুল ইসলাম আবিক
উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের সিকদারবিল গ্রামের আলতাজ মিয়ার ছেলে, যার বয়স হয়েছিলো মাত্র ৭ মাস।

মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত দেড়টা দিকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় আবিক কে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে নিয়ে যায় পরিবার।

সেসময় কর্তব্যরত চিকিৎসক সেবা দিতে বিলম্ব করলে আবিকের অবস্থা আরো অবনতির দিকে যেতে থাকে।

হাসপাতাল সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলছে, কাইসার ইকবাল নামে এক এনজিও চিকিৎসক তখন দায়িত্বরত ছিলেন।

যার বিরুদ্ধে আগে অসংখ্য অভিযোগ থাকলেও যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে জানা গেছে।

আবিকের পিতা জানান, দীর্ঘক্ষণ পর চিকিৎসক আসলেও তার পরিবারের সদস্যদের সাথে বিরুপ আচরণ করা হয় এবং ভর্তি না করিয়ে আবিককে অনত্র নিয়ে যেতে বলা হয়।

তিনি বলেন, ” আমার ছেলে কে তারা চিকিৎসা দেয়নি, উপায়ন্তর না পেয়ে আমরা কক্সবাজার নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করি। পথিমধ্যে কোটবাজার অরজিন হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।”

এঘটনার সুস্থ তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়ে আবিকের পিতা আরো বলেন, “অন্য কারো সন্তানের ক্ষেত্রে পুনরায় এমন যেনো না ঘটে আমি সেটাই চাই আবিকরে ত আর ফিরে পাবো না। সঠিক সময়ে সঠিক সেবা পেলে বাপ আমার দুনিয়া ছেড়ে যেত না।”

খবর পেয়ে ঘটনার সময় হাসপাতালে যান রাজাপালং ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সরোয়ার কামাল পাশা।

তিনি এঘটনার তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ করেছেন বলে জানিয়ে তিনি বলেন, ” বিষয়টি আসলেই দুঃখজনক যা কখনো কাম্য নয়। আশা করি হাসপাতাল কতৃপক্ষ তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবে।”

এপ্রসঙ্গে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার রঞ্জন বড়ুয়া রাজন জানান, “আমি ছুটিতে আছি এব্যাপারে আমার আবাসিক মেডিকেল অফিসার বলতে পারবেন।”

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা ডাক্তার সাজেদুল ইমরান শাওন বলেন, “সে সময় দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক কে ডিউটি থেকে বিরত রাখা হয়েছে। তদন্তের জন্য শিশুর পরিবারকে লিখিত অভিযোগ দিতে বলেছি। সিসিটিভি, অরজিন হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ব্যবস্থা পত্র সবকিছু পর্যালোচনা করা হচ্ছে। ”

এর আগে গত ২৭ আগস্ট উখিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিমানিশু ওয়ার্ডে ৮ বছর বয়সী এক শিশুর মৃত্যু হয়।

চিকিৎসায় অবহেলার কারণে শিশুটি মারা যায় বলে দাবী করে তার পরিবার।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page