Thursday, February 29, 2024
spot_img

এমপি জাফর কী তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হবেন?

বিশেষ প্রতিবেদক :

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন আহমেদকে ঘিরে কক্সবাজারের চকরিয়া পেকুয়ায় গড়ে উঠেছিলো বিএনপির বিশাল দূর্গ। একসময় বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত কক্সবাজারের চকরিয়া পেকুয়া সংসদীয় আসনটি৷ সাবেক যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী সালাউদ্দিন আহমেদ এর বেশ প্রভাব এই আসনটিতে।

সেই দূর্গে আঘাত হানার জন্য আওয়ামীলীগ বেছে নিয়েছিলো ছোটোখাটো গড়নের জাফর আলমকে। দীর্ঘ ৪২ বছর পর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসনটিতে নির্বাচিত হয় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী জাফর আলম।

এরপর প্রতিপক্ষকে ঘায়েলে সেই জাফর নিজের জাত চেনাতেও ভুল করেনি বলে মত চকরিয়া পেকুয়ার আ’লীগ নেতাকর্মীদের। নাম প্রকা্শে অনিচ্ছুক চকরিয়া পৌর আওয়ামীলীগের এক নেতা বলেন, বিএনপির দূর্গে নৌকার ঝান্ডা উড়ানো জাফরকে বাদ দিয়ে যদি মনোনয়ন যায় অন্য কারো ঘরে, তবে এতে তৃণমূলের অনেক ত্যাগী নেতাকর্মীই হতাশ হয়ে পড়বেন। যার প্রভাব পড়তে পারে দলেও।

এদিকে নানান গুঞ্জনে খবর আসা সালাউদ্দিন আহমেদ সিআইপি এই আসন থেকে মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন। তিনি এর আগেও নৌকার মনোনয়ন পেয়ে সংসদ নির্বাচন করেছিলেন, তবে বিএনপির সালাউদ্দিনের কাছে পরাজিত হন।

এসব গুঞ্জনের মধ্যেই রোববার দুপুরে জাফর আলমের পুত্র তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী তুহিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে তার ব্যক্তিগত আইডি থেকে একটি স্ট্যাটাস দেন।
সেই স্ট্যাটাসে তিনি তার বাবার তৃণমূল থেকে ধীরে ধীরে উঠে আসার গল্প বলেন এবং অনেকটা হতাশা ব্যক্ত করেন মনোনয়ন পাওয়া না পাওয়া নিয়ে। কিন্তু ইঙ্গিত করেছেন নির্বাচন করার। তার মানে কী জাফর দলীয় মনোনয়ন না পেলে স্বতন্ত্র নির্বাচন করবেন?

তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী তুহিনের স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো-
“আমার বাবা জনাব জাফর আলম তাঁর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অনেক সংগ্রাম করে এই পর্যায়ে এসেছেন। তিনি জীবনে কোন কিছুই খুব সহজে পাননি। তাঁকে কষ্ট করে অর্জন করে নিতে হয়েছে।

সালাউদ্দিন দূর্গে হাজারো মানুষ এখন ‘জয় বাংলা’ স্লোগানে রাজপথ দাপিয়ে বেঁড়ায়। আওয়ামী জনসভায় সহস্র মানুষের ঢল নামে। গল্পটা অনেকটা পাথরে ফুল ফুটানোর মতোই।

জনগণের সাথে হ্যান্ডশেক করে টিস্যু দিয়ে হাত মুছে ফেলার রাজনীতির পরিবর্তে তিনি জনগণকে বুকে টেনে নিয়েছেন। ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র, উপজেলা চেয়ারম্যান থেকে তিনি এমপি হয়েছেন। জনগণের নেতা হয়ে উঠেছেন।

চকরিয়া-পেকুয়ার বিরোধী নেতাকর্মীরাও স্বীকার করে নেয় যে এই বিপ্লবে জাফর আলমের অবদানের কথা। কিন্তু তাঁর দলেরই জনবিচ্ছিন্ন নেতারা তাঁর এই উত্থান কোনভাবেই মেনে নিতে পারেনি।

আমরা যখন রাজপথ আগলে রাখতে জীবন বাজি রেখে লড়ছি তখন মোস্তাকের দল এসি রুমে বসে ষ’ড়যন্ত্র করে চলেছে। ইতিহাস বলে রাজনীতিতে অনেক সময় মোস্তাকদের জয় হয়। তবে তা ক্ষনিকের। ব্যালট বিপ্লবে তৃণমূল নেতাকর্মী ও জনগণ খন্দকার মো’স্তাক আহমদদের জবাব দিবে, ইনশাআল্লাহ..”

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page