Monday, February 26, 2024

উখিয়া টেকনাফে কে কে প্রার্থী হতে পারেন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের সর্বদক্ষিণের অঞ্চল উখিয়া-টেকনাফ নিয়ে গঠিত সংসদীয় আসন কক্সবাজার ০৪ এ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে নানান জটিল সমীকরণ ঘুরপাক খাচ্ছে।

বিশেষ করে এই আসনে সাবেক মন্ত্রী পরিষদ সচিব শফিউল আলম আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দেয়ার পর যেনো মোড় ঘুরে যায়। মনোনয়ন কে পাচ্ছেন এ আসনে তা নিয়েই চলছে আলোচনা।

সাবেক মন্ত্রী পরিষদ সচিব শফিউল আলম দেশের বাইরে থাকায় তার পক্ষে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন ছোট ভাই অধ্যক্ষ শাহ আলম এবং মনোনয়ন ফরম জমা দেয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে।

এ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদির স্ত্রী শাহীন আক্তার। তিনি এবং আব্দুর রহমান বদি দুজনেই মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন আওয়ামীলীগের। বদির শ্যালক তথা এমপি শাহীন আক্তারের ছোটো ভাই উখিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীও মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন। সব মিলিয়ে মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন ১ ডজনেরও বেশী নেতা।

তবে সাবেক মন্ত্রী পরিষদ সচিব শফিউল আলমের মনোনয়ন ফরম নেয়ার বিষয়টি স্বাভাবিক ভাবে দেখছেন না অনেকেই।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে উখিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের দায়িত্বে থাকা সাবেক এক নেতা জানান, শফিউল আলম বর্তমানে আমেরিকায় অবস্থান করছেন। মন্ত্রী পরিষদ সচিব হিসেবে অবসর নেয়ার পর দলীয় রাজনীতিতে তার অংশগ্রহণ ছিলোনা, এ নিয়ে তাঁর আগ্রহও ছিলোনা। তাছাড়া তিনি অন্য দশজনের মতো নিজেকে পরিচিত করাতে বা দলীয় গ্রুপিংয়ের কারনে বা অন্য কাউকে ঠেকাতে বা সবাই নিচ্ছে আমিও নেই এরকম কোনো কারনে তো দলীয় মনোনয়ন জমা দেননি। নিশ্চয়ই তিনি নির্ভরযোগ্য কোনো জায়গা থেকে গ্রীন সিগন্যাল পেয়েছেন।

জানা গেছে, শফিউল আলম বর্তমানে আমেরিকায় বিশ্ব ব্যাংকের পরিচালক হিসেবে কর্মরত আছেন। রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা মনে করছেন, দলীয় হাইকমান্ডের ইশারা থাকতে পারে, তাই হয়তো তিনি মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। ফলে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন শফিউল আলম পেলে অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না। এ আসন থেকে সুশিক্ষিত, শহীদ পরিবারের ইতোপূর্বে পরিক্ষীত একজন হিসেবেও শফিউল আলমকে এমপি হিসেবে দল যোগ্য মনে করতে পারে। যাকে মন্ত্রীও বানানো সম্ভব, এমনই মন্তব্য করেছেন তার সমর্থকেরা।

অন্যদিকে বিএনপি নির্বাচনে আসার সম্ভাবনা নেই, তখন তো খালি পোস্টে গোল দেয়ার মতই ঘটনা ঘটবে। সেই সুযোগে আওয়ামীলীগ শফিউল আলমের মতো দেশের সাবেক সর্বোচ্চ আমলা হিসেবে উনাকেই এমপি বানিয়ে সংসদে নিতে চায় দল ও রাষ্ট্রের প্রয়োজনে, এমনও হতে পারে বলে ধারনা করছেন উখিয়া-টেকনাফের কেউ কেউ।

জানা গেছে, সরকারি চাকুরি থেকে অবসর গ্রহনের পর নির্বাচন করার জন্যে যে সময়সীমা পার হতে হয়, সেই সময় পার হয়ে যাওয়ায় শফিউল আলম নির্বাচন করতে কোনো আইনী বাঁধা নেই।

তবে এ আসনে বর্তমান আওয়ামীলীগের এমপি শাহীন আকতার ও তার স্বামী সাবেক এমপি বদি দলীয় মনোনয়ন না পেলে তার পরিবারের কেউ স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবে বলে জানিয়েছে তাদের একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র।

সম্প্রতি উচ্চ আদালত ২ বছরের বেশী সাজা হলে, সে মামলা আপীলে থাকলেও সাজাপ্রাপ্ত কেউ নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না মর্মে একটি নির্দেশনা দেয়, তার আলোকে সাবেক এমপি বদির ৩ বছরের সাজা হওয়ায় তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। সে ক্ষেত্রে বদির পরিবারের কেউ স্বতন্ত্র নির্বাচন করবে যদি বদির স্ত্রী বর্তমান এমপি শাহীন আক্তার আওয়ামীলীগের মনোনয়ন না পায়। তখন বিষয়টি জটিল হয়ে যেতে পারে বলে মন্তব্য বিশ্লেষকদের।

এদিকে সাবেক এমপি বদি পুত্রসহ তাদের সমর্থকেরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সুখবর আসছে বলে ইঙ্গিত দিচ্ছেন। তাই মনোনয়ন যুদ্ধে নৌকার মাঝি কে হবেন এ নিয়ে নানান হিসেব নিকেশ চলছে উখিয়া টেকনাফ জুড়ে।

অন্যদিকে জেলা বিএনপির অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ শমসের মুবিন চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন তৃণমূল বিএনপি তে যোগ দিচ্ছেন এবং তৃণমূল বিএনপি থেকে উখিয়া টেকনাফে সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। যদিওবা এ বিষয়টি আব্দুল্লাহ বা তার পক্ষে কেউ নিশ্চিত করেনি।

এ বিষয়ে জানতে মো: আব্দুল্লাহকে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও, তিনি সাড়া দেননি। তাই তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

যদি তৃণমূল বিএনপি থেকে আব্দুল্লাহ নির্বাচন করেন তখন ভোটের সমীকরণ আরো জটিলতর হবে বলে বলছেন অনেকেই। যদিওবা মো: আব্দুল্লাহ তৃণমূল বিএনপি থেকে নির্বাচন করবেন কি না এখনও নিশ্চিত নয়।

তবে সবকিছু নির্ভর করছে সময় আর পরিস্থিতির উপর, আর এ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন কে পাচ্ছেন তার উপর।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page