Thursday, February 29, 2024
spot_img

ঈদগাঁওয়ের ছাত্ররাজনীতি : তিন বছর ধরে বিকলাঙ্গ ছাত্রলীগ- ছাত্রদল, ম্রিয়মাণ শিবির,তিন যুগেও অদৃশ্য ছাত্র ইউনিয়ন

শাহিদ মোস্তফা শাহিদ, ঈদগাঁও :

কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলায় প্রায় তিন বছরের অধিক সময় ধরে বিকলাঙ্গ হয়ে আছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ও জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের রাজনীতি। তিন বছর ধরে ম্রিয়মাণ হয়ে পড়ছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির, তিন যুগ ধরে অদৃশ্য ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতি।

আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সারাদেশে ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া চললেও অদৃশ্য শক্তির ইশারায় ঈদগাঁও উপজেলা কমিটি অনুমোদন দিচ্ছে না জেলা ছাত্রলীগ।বিগত ৩ বছরের অধিক সময় ধরে অভিভাবক শূন্য হয়ে থাকায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

অপরদিকে সরকার বিরোধী  আন্দোলন সংগ্রামে ব্যস্ত থাকায় ঈদগাঁও  উপজেলা ছাত্রদলের  কমিটি পূর্ণাঙ্গ করছে না জেলা ছাত্রদল।

কেন্দ্রের নির্দেশে প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে আসলেও রাজপথে প্রায় ম্রিয়মাণ জামায়াতে ইসলামীর সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রশিবির। মাঝে মধ্যে ঝটিকা মিছিল বের করলেও প্রকাশ্যে মিছিল মিটিং এ দেখা যায় না তাদের। তবে তাদের রাজনৈতিক কর্মকান্ড চলে গোপনে।

এদিকে প্রায় তিন যুগ ধরে অদৃশ্য ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতি। উপজেলা তো দূরের কথা এ পর্যন্ত কোনো ইউনিয়নেও কমিটি গঠন করতে পারেনি ছাত্র ইউনিয়নের জেলা কমিটি।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, ২০১৯ সালে কেন্দ্রের নির্দেশে ঈদগাঁও উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। ঘোষণার পর থেকেই অধ্যবদি কোনো কমিটি গঠন করা হয়নি।ফলে তৃণমূল পর্যায়ের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পদ-পদবী বিহীন সাংগঠনিক কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে। উপজেলা কমিটি না থাকায় ৫ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটিতে ভাটা পড়ছে।প্রতিটি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক বিবাহিত জীবনে পর্দাপন করলেও বিলুপ্ত করেনি ইউনিয়ন কমিটি।

আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের শক্ত অবস্থান থাকার কথা থাকলেও হ-য-ব-র-ল অবস্থায় রয়েছে। তৃণমূল ছাত্রলীগের এক নেতা জানান, জেলা ছাত্রলীগের তিন বছর পার করলেও সামান্য একটি উপজেলা কমিটি দিতে না পারা ব্যর্থতা ছাড়া কিছু না।

একাধিক প্রার্থী থাকলেও বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত হওয়ায় তৃণমূল পর্যায়ের ছাত্র নেতারা পড়ছে বিপাকে। তারা দ্রুত সময়ের মধ্যে ঈদগাঁও উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের অনুরোধ জানান।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম সাদ্দাম হোসেন টিটিএন বলেন; চাইলে আগামীকালের মধ্যেই ঈদগাঁও উপজেলা কমিটি অনুমোদন দেওয়া সম্ভব, কিন্তু তিনি একক কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না।

মতামত জানতে কল করা হয় জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনানের মুঠোফোনে, কিন্তু তিনি কল রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এদিকে জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির সহযোগী সংগঠন ঈদগাঁও উপজেলা ছাত্রদলেও চলছে হ-য-ব-র-ল অবস্থা।২০২০ সালের দিকে দেশব্যাপী জেলা,উপজেলা, পৌরসভা, সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দিলেও দীর্ঘ বছর ধরে পূর্ণাঙ্গ না হওয়ায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ছে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।

দীর্ঘদিন ধুমকেতুর মতো মিছিল মিটিং করলেও সম্প্রতি হরতাল অবরোধের নামে নৈরাজ্য, সড়কে ককটেল  বিস্ফোরণের মতো ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। ঐ মামলায় ছাত্রদলের কয়েকজনকে আসামী করার পর হঠাৎ তাদের রাজনৈতিক তৎপরতা কমে যায়।

ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা টিটিএনকে জানান ; আহবায়ক এবং যুগ্ম আহবায়কদের কয়েকজন সক্রিয় থাকলেও নতুন করে মামলা হওয়ার পর থেকে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ছে। ইউনিয়ন, ওয়ার্ড পর্যায়ে তাদের শক্তিশালি কমিটি থাকলেও কোনো কাজে আসছে না। তিন বছর ধরে ছাত্রদলের রাজনীতিতে ভরাডুবি চলছে বলে জানান নেতাকর্মীরা। প্রতি ইউনিয়নে সম্মেলন কাউন্সিল করে কমিটি করার নির্দেশনা থাকলে তা না করে এক দিনে ৪ ইউনিয়ন ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা করে উপজেলার আহবায়ক কমিটি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজার জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ফাহিমুর রহমান ফাহিম; টিটিএনকে জানান” এক যোগে সারাদেশে আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল।সরকার বিরোধী আন্দোলন সংগ্রামে ব্যস্ত থাকায় আপাতত পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের দিকে যাচ্ছে না ছাত্রদল। তবে আন্দোলন সংগ্রাম সফল হলে শিগগিরই পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে বলে জানান।

জামায়াতের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মী সূত্রে জানা যায়, কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশক্রমে সরকার বিরোধী প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে আসছে ঈদগাঁও উপজেলা ছাত্রশিবির। তবে প্রায় তিন বছর ধরে আড়াল থেকে তাদের রাজনৈতিক তৎপরতা থাকলেও প্রকাশ্যে ম্রিয়মাণ। ঈদগাঁও উপজেলা ছাত্রশিবিরের অধিনে ৫ ইউনিয়নসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তাদের কমিটি রয়েছে বলে জানা গেছে।

উপজেলা ছাত্রশিবিরের দায়িত্বশীল কয়েকজন নেতাকর্মী জানান, তারা রাজপথে নিরব থাকলেও সরকারের দমন নিপীড়নের মধ্যে টিকিয়ে রাখছে ইসলামি আন্দোলনের রাজনীতি। মামলা ধরপাকড়ের ভয়ে অনেক নেতাকর্মী রাজপথে নামছে না বলেও জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন সাথী সদস্য। তবে এ বিষয়ে ছাত্রশিবিরের জেলা পর্যায়ে কারো সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

অন্যদিকে দীর্ঘ তিন যুগ ধরে অদৃশ্য ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতি। ভাষা আন্দোলনের পটভূমিকায় ছাত্র আন্দোলন তথা গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সম্মুখে অসাস্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী ও প্রগতিশীল রাজনৈতিক চেতনায় ঐক্য, শিক্ষা, শান্তি, প্রগতির কথা বললেও দীর্ঘ ৩ যুগ ধরে ঈদগাঁও উপজেলায় একটি ওয়ার্ড কমিটিও করতে পারেনি জেলা ও কেন্দ্রীয় সংসদ। ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতি না করলেও তাদের কয়েকজন অনুসারী জানান, ছাত্র ইউনিয়ন জাতি ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল শিক্ষার্থীদের একতাবদ্ধ করতে পারলে অন্তত ঈদগাঁওতে ঝিয়ে রাখতে পারতো তাদের রাজনীতি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজার জেলা ছাত্র ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তনয় দাশ সবুজ টিটিএনকে বলেন; ঈদগাঁও উপজেলায় কোনো কমিটি নেই এটা সত্য। তবে সংগঠনের অগ্রযাত্রাকে বেগবান করতে তারা তৎপর রয়েছে। আগামী সম্মেলন কাউন্সিলে যারা নতুন নেতৃত্ব আসবে তারা উপজেলা কমিটি গঠন করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page