Thursday, April 11, 2024

প্রথমবারের মতো বসলো কেএনএফ ও শান্তি কমিটি: সন্ত্রাস বন্ধে সমঝোতা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বান্দরবানের সংঘাত নিরসনে প্রথমবারের মতো বহুল আলোচিত বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) ও শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটির মুখোমুখি বৈঠক করেছে।

গেলো ৫ নভেম্বর রোববার দুপুরে রুমা উপজেলা সদরের মুনলাইপাড়া এলাকায় প্রথমবারের মতো মুখোমুখি এই সংলাপ হয়।

সংলাপে কেএনএফের প্রধান নাথান বমের উপদেষ্টা এংলিয়ান বমের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশ নেয়। অপরদিকে শান্তি কমিটির আহ্বায়ক ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যাশৈহ্লা’র নেতৃত্বে ১০ সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশ নেয়। অন্যদের মধ্যে মুখপাত্র কাঞ্চন জয় তঞ্চঙ্গ্যা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রায়হান কাজেমী, নিরাপত্তা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সংলাপে অংশ নেওয়া শান্তি কমিটির মুখপাত্র কাঞ্চন জয় তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর কেএনএফের সাথে শান্তি কমিটির নেতৃবৃন্দের মুখোমুখি সংলাপ হয়েছে। দুই পক্ষের মধ্যে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। আগামী ডিসেম্বরে দ্বিতীয় দফায় মুখোমুখি সংলাপ অনুষ্ঠিত হবে। তিনি জানান, গত ৫ অক্টোবর প্রথম মুখোমুখি সংলাপ হওয়ার কথা ছিল। তবে কিছু জটিলতার কারণে তা সম্ভব হয়নি। সংঘাত নিরসন করে পাহাড়ে শান্তি ফেরাতে দুই পক্ষের এই সংলাপ কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন তিনি।

শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটির সভাপতি ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যাশৈহ্লা বলেন, দুই পক্ষ আন্তরিকভাবে আলোচনা করতে পেরেছি।

বান্দরবান জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রায়হান কাজেমী বলেন, পুলিশ সুপারের নির্দেশক্রমে আমরা এই বৈঠকের শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় নানাবিধ আলোচনা করেছি। পাহাড়ে শান্তি ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে মন্তব্য করে রায়হান কাজেমী বলেন, একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্রে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষে আলোচনার কোন বিকল্প নেই। তিনি মনে করে দুই পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় আলোচনার মাধ্যমে পাহাড়ে শান্তির সুবাতাস বইবে।

সংলাপের মাধ্যমে দুই পক্ষের সিদ্ধান্ত হয়েছে, আগামী ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে পরবর্তী মুখোমুখি সংলাপ হবে। দুই পক্ষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে প্রথম সংলাপ শেষ হয়। আগামীতে এখানকার পরিস্থিতি আরো উন্নত হবে। সংলাপে দুই পক্ষ একমত হয়েছে এটাকে স্থির রাখার জন্য।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page