Saturday, April 13, 2024

৫১৫ টাকায় রেলে কক্সবাজার থেকে ঢাকা:৭ নভেম্বর ট্রায়াল রান

মুরাদ মাহমুদ চৌধুরী:

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইনে ট্রায়াল রান(পরীক্ষামূলক চলাচল) এর পূর্বনির্ধারিত তারিখ ২ নভেম্বরের পরিবর্তে ৭ নভেম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে।

বুধবার সকাল ৯টায় চট্টগ্রামের থেকে নতুন ১টি ইঞ্জিনসহ ৬টি বগির কম্পোজিশনে পরীক্ষামূলক ট্রেনটি নবনির্মিত কক্সবাজার রুটের চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজারে পথে যাত্রা করবে। কক্সবাজার পৌঁছে ট্রেনটি আবার চট্টগ্রামের দোহাজারীতে ফিরে আসবে।

পরীক্ষামূলক এ ট্রেনে রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন, রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদী স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামের এবং কক্সবাজারের সকল সংসদ সদস্য থাকবেন বলে জানা গেছে।

প্রকল্প পরিচালক সুবক্তগীন জানান,“কালুরঘাট সেতুর মেরামত কাজ বৃহস্পতিবারের মধ্যে শেষ করার চেষ্টা চলছে। শুক্রবার (৩ নভেম্বর) সেখানে ট্রায়াল হবে। ইতিমধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার এবং চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলপথের জন্য একাধিক নতুন ট্রেন চালুর সময়সূচি এবং ট্রেনের ছয়টি নাম প্রস্তাব করে পূর্বাঞ্চল মহাব্যবস্থাপকের কার্যালয় থেকে ঢাকা রেল ভবনে পাঠানো হয়েছে। ৭ নভেম্বর রেলমন্ত্রী এসব ট্রেনের সময়সূচি ঘোষণা করবেন।”

তবে রেলওয়ে প্রজেক্টের স্ট্রাকচার ইঞ্জিনিয়ার সালাউদ্দিন মাহমুদ জানান, রেলের ট্রায়াল রানের পরও কিছু আনুষঙ্গিক কাজ চলবে। তাই যাত্রীবাহী রেল চলাচল করতে ২মাস মতো সময় লাগতে পারে। আশা করছি ডিসেম্বরের শেষের দিকে রেলযোগে পর্যটন শহরে যাত্রী আসা যাওয়া করতে পারবে।”

চিফ অপারেটিং সুপারিনটেনডেন্ট মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, “প্রথমে চট্টগ্রাম থেকে দুই জোড়া এবং ঢাকা থেকে এক জোড়া ট্রেন পর্যটন শহর কক্সবাজারে থেকে আসা-যাওয়া করবে। তিনটি ট্রেনই আন্তনগর। তবে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনটি শুধুমাত্র চট্টগ্রাম স্টেশনে দাঁড়াবে। আসন খালি থাকা সাপেক্ষে চট্টগ্রাম থেকে টিকিট বিক্রি করা হবে। ট্রেনটি অন্য কোনও স্টেশনে দাঁড়াবে না। সরাসরি কক্সবাজার আসবে। চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে যাওয়া ট্রেনগুলো মাঝপথে কয়েকটি স্টেশনে দাঁড়াবে।”

ট্রেনে কক্সবাজার থেকে ঢাকা যেতে সময় লাগবে ৯ঘন্টা। চট্টগ্রাম থেকে সোয়া দু’ঘণ্টায় ট্রেন পৌঁছাবে কক্সবাজারে।
ঢাকা-কক্সবাজার রুটে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে সর্বনিম্ন ৫১৫ টাকা এবং সর্বোচ্চ ২,০৩৬ টাকা। যেখানে ঢাকা থেকে কক্সবাজার নন-এসি অর্থাৎ শোভন চেয়ারে ৫১৫ টাকা ও এসি সিটে ৯৮৪ টাকা ভাড়া প্রস্তাব করা হয়েছে। এসি সিটে ১৫% ভ্যাটসহ ভাড়া হবে ১,১৩২ টাকা। ভ্যাটসহ এসি কেবিনে ১,৩৬৩ ও এসি বার্থে ভাড়া পড়বে ২,০৩৬ টাকা। এছাড়া টিকেট কেনা যাবে ই-টিকেটিং সিস্টেম eticket.railway.gov.bd এর মাধ্যমেও।

ট্রেনটির ছয়টি নাম প্রস্তাব করেছে রেলওয়ে। তা হলো- ‘প্রবাল এক্সপ্রেস’, ‘হিমছড়ি এক্সপ্রেস’, ‘কক্সবাজার এক্সপ্রেস’, ‘ইনানী এক্সপ্রেস’, ‘লাবণী এক্সপ্রেস’ ও ‘সেন্টমার্টিন এক্সপ্রেস’। আগামী ১১নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধনের দিন রেললাইনের সময়সূচি ও নামগুলো ঘোষণা করবেন।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page