Thursday, April 11, 2024

বাংলাদেশের সুশীল বাবুরা এখন কোথায়?

টিটিএন ডেস্ক:

২৮ অক্টোবর বিএনপির সমাবেশের খবর সংগ্রহে গিয়ে নির্যাতিত সাংবাদিকদের পাশে আছেন বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, তাদের পাশে আমি সবসময় আছি। সাধ্য মতো সহযোগিতা করার করব। এ টুকু আশ্বাস আমরা দিতে পারি। এদের চিকিৎসা হোক, এরা ভালো হয়ে উঠুক, সেটাই আমরা চাই।

সাংবাদিকদের ওপর এই হামলা প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কিছু কিছু আছে, সামান্য কিছু হলে তারা বড় বড় বিবৃতি দেয়। তারা কোথায় এখন? তাদের এখন আমরা দেখি না, তাদের কোনো কথা শুনি না, হঠাৎ করে তারা কোথায় চলে গেল। এই যে ৩০ জন সাংবাদিক আহত, তাদের কাছ থেকে তো কোনো কথা শুনি না। বাংলাদেশের সুশীল বাবুরা কোথায়? সুশীল বাবুদের কাজ কী? আওয়ামী লীগের কিছু হলে, আওয়ামী লীগের দোষ খুঁজে বেড়ানো? মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীদের কোনো অপরাধ নেই। আমাদের সুশীল বাবুরা এখন চুপচাপ। তাদের কাছ থেকে এখন কোন বিবৃতিও দেখি না, কিছুই দেখি না। এখন কেন মানবাধিকার সংগঠনগুলো সোচ্চার হয় না? তারা কেন এখন চুপ হয়ে আছে?

আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ফেডারেল ইউনিয়ন অব জার্নালিস্টসের (বিএফইউজে) প্রতিনিধি সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। বিএফইউজে সভাপতি ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য, সম্প্রচারমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। বিএফইউজে মহাসচিব দীপ আজাদ সম্মেলন সঞ্চালনা করেন।

বিএনপির আমলে প্রেসক্লাবে পুলিশ ঢুকিয়ে দিয়ে সাংবাদিকদের পেটানো হয়েছিল উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড এদের চরিত্র। সাংবাদিকদের ওপর যেভাবে আক্রমণ করেছে, পুলিশের উপর যেভাবে আক্রমণ করেছে, আমি তীব্র নিন্দা জানাই। কোনো কোনো পত্রিকাও আমাদের উপর দোষারোপের চেষ্টা করে, তাদের ধিক্কার জানাই। প্রকাশ্য দিবালোকের ঘটনা আর এখন হলো ডিজিটাল যুগ, সবকিছু ধারণ করা যায়, চেহারা পর্যন্ত দেখা যায়। দক্ষিণ যুবদলের এক নেতা…প্রেস লেখা…সে আগুন দিচ্ছে… পেটাচ্ছে…পুলিশ মারছে। এত কিছু করেও তারা ভাবছে রেহাই পেয়ে যাবে। এর শাস্তি তাদের পেতে হবে।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page