Wednesday, May 22, 2024

এসএসসি ফলে চমক দেখালো উখিয়ার মরিচ্যা উচ্চ বিদ্যালয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

কক্সবাজার জেলায় এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে চমক দেখিয়েছে উখিয়ার মরিচ্যা পালং উচ্চ বিদ্যালয়। জেলায় ২০২৪ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের পাশের সংখ্যা দিক থেকে ২য় স্থানে আছে উখিয়া উপজেলা হলদিয়াপালং ইউনিয়ন এর এই বিদ্যালয়টি,যেখান থেকে কৃতকার্য হয়েছে সর্বোচ্চ ৩৯২ জন শিক্ষার্থী।

২০২৪ সালের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষার ফলাফলে কক্সবাজার জেলায় সবচেয়ে বেশি শিক্ষার্থী পাশ করেছে কক্সবাজার বায়তুশ শরফ জব্বারিয়া একাডেমী।
এই বিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ ৪৬২ জন শিক্ষার্থী এইবারের এসএসসি পরীক্ষায় কৃতকার্য হয়েছে, পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিলো ৪৮৭ জন। ২য় সর্বোচ্চ মরিচ্যা পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিলো ৪৩১ জন।

পাশের সংখ্যায় ৩য় স্থানে আছে চকরিয়ার কোরক বিদ্যাপীঠ, যেটির মোট ৩৮৭ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৮০ শিক্ষার্থী পাশ করেছে।

মরিচ্যা পালং উচ্চ বিদ্যালয় গত বছরের এসএসসি পাশের সংখ্যা ছিলো ১৮৯ জন। আর পাশের হার ছিলো ৪৬ শতাংশ। এক বছরের ব্যবধানে মরিচ্যা পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের বিশাল সাফল্যকে চমক হিসেবে দেখছেন স্থানিয়রা।

মরিচ্যা স্কুলের অভিভাবকরা বলছেন, হলদিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরী মরিচ্যা স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালনকালে বিদ্যালয়টির চেহারা পাল্টে যায়।

তার সময়কালে দীর্ঘ এক দশক পরে মরিচ্যাপালং উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়, পাশাপাশি পর্যাপ্ত সংখ্যক দক্ষ ও অভিজ্ঞ শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে বিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনেন। এরই ধারাবাহিকতায় শিক্ষার মানে ও গুনে পিছিয়ে পড়া বিদ্যালয়টি নতুন ভাবে প্রাণ ফিরে পেয়েছে।

মরিচ্যাপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল করিম জানিয়েছেন, বিদ্যালয়ে বর্তমানে শতভাগ শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনা হয়েছে। নিয়মিত পাঠদানের পাশাপাশি পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ ক্লাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের পড়ালেখা মনিটরিং করা হয়েছে। শিক্ষা, কর্মচারী ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সমন্বিত চেষ্টায় মরিচ্যা পালং উচ্চ বিদ্যালয় এসএসসি পরিক্ষায় ভালো ফলাফল লাভ করে।

কক্সবাজার জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দীন জানিয়েছেন, মরিচ্যা পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের ফলাফল সবাইকে চমকে দিয়েছে। বিদ্যালয়টি এই ধারাবাহিকতা অব্যহত রাখবে বলে তিনি আশা করেন।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page