Sunday, April 14, 2024

বিএনপি নেতারা ভারতীয় গরুর মাংস দিয়ে সেহরি খায়, বউরা ভারতীয় শাড়ি পরে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

টিটিএন ডেস্ক:

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি এখন শুরু করেছে ভারতীয় পণ্য বর্জন। নেতারা সন্ধ্যাবেলা ভারতীয় পেঁয়াজ দিয়ে পিয়াজু খায়, রাতেরবেলা ভারতীয় গরুর মাংস দিয়ে সেহরি খায়। বউকে নিয়ে যখন বাইরে যায়— তখন বউ ভারতীয় শাড়ি পরে বের হয়। আর ওনারা (বিএনপি) বলে ভারত বর্জনের কথা।

রবিবার (৩১ মার্চ) জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনস রিপোর্টারস ফোরাম বাংলাদেশ (আইআরএফ) আয়োজিত ‘বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বিনির্মাণে গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘তাদের (বিএনপি) এই ধরনের রাজনীতি দেশের জন্য কোনও মঙ্গল বয়ে আনে না। সরকারে থাকলে সমালোচনা হবেই। সমালোচনাহীন সমাজ তো গণতান্ত্রিক সমাজ হতে পারে না, বহিমাত্রিক সমাজ হতে পারে না। কিন্তু সেই সমালোচনা যখন দেশ বিধ্বংসী সমালোচনা হয়, সেটি কখনও কাম্য নয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশকে নেতিবাচকভাবে বিশ্ব পরিমণ্ডলে তুলে ধরা কিছু ব্যক্তি বিশেষের পেশায় রূপান্তরিত হয়েছে। এটি করে তারা তহবিল সংগ্রহ করে এবং সেই তহবিল নিজেদের মতো করে খরচ করে। দেশের কোনও কোনও গণমাধ্যমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কেউ কেউ বাংলাদেশকে এমন নেতিবাচকভাবে উপস্থাপন করে, সেটি কিন্তু পরে ক্ষতি হয়। কোনও নেতিবাচক সংবাদ যদি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়— সেটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে যত কলেবরে প্রচারিত হয়, তার থেকে চারগুণ বেশি কলেবরে আমাদের দেশে প্রকাশ করে।’

আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ভারতের কাশ্মীরে যখন পাকিস্তানি সৈন্যের আক্রমণে ভারতীয় সৈন্যরা হতাহত হলো— তখন ভারতের প্রধান বিরোধীদলীয় নেত্রী সোনিয়া গান্ধী সরকারকে নিঃশর্ত সমর্থন দিলেন যে, এই সংকট মোকাবিলায় আমরা সরকারের পাশে আছি। অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোও সরকারের পাশে থাকার অভিপ্রায় ব্যক্ত করলো। আর আমাদের দেশে যখন পাশের দেশ মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষীরা পালিয়ে আসে— তখন বিএনপি নেতারা বিবৃতি দেয় নতজানু পররাষ্ট্রনীতির কারণে ওরা পালিয়ে এসেছে। আরে ওখানে গোলাগুলি হচ্ছে ওরা (মিয়ানমার সৈন্য) প্রাণ ভয়ে পালিয়ে এসেছে। এর সঙ্গে পররাষ্ট্রনীতির কী সম্পর্ক?’

তিনি বলেন, ‘এই হচ্ছে তাদের (বিএনপি) বক্তব্য। দেশকে নেতিবাচকভাবে তুলে ধরতে বিরোধী দল সারাক্ষণ ব্যস্ত। তাদের দলের নেতা বিদেশে বসে তাদের পেইড এজেন্ট দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালায়। আর কিছু ভুঁইফোর অনলাইনের মাধ্যমে অপপ্রচার চালায়। সেই অপপ্রচারে আমাদের দেশের মানুষ বিভ্রান্ত হয়। এগুলো কিন্তু দেশের ভাবমূর্তি বিনির্মাণের জন্য বড় অন্তরায়। এগুলোর বিরুদ্ধে মেইনস্ট্রিম মিডিয়াকে কাজ করতে হবে।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘দেশকে নেতিবাচকভাবে তুলে ধরার মধ্যে কোনও কৃতিত্ব নাই। দেশকে পজিটিভলি তুলে ধরতে হবে। দেশকে পজিটিভলি তুলে ধরার ক্ষেত্রে কাজ করতে হবে।’

আইআরএফ এর সভাপতি হাসান মাহামুদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হক সুজনের সঞ্চালনায় এসময় আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন— দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. মহিববুর রহমান, সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ শাহরিয়ার আলম, সাংবাদিক নেতা ওমর ফারুক, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব মনজুরুল আহসান বুলবুল প্রমুখ।

সুত্র:বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page