Thursday, May 23, 2024

শিক্ষার্থীর টাকা আত্মসাৎ : শিক্ষককে মারধরের অভিযোগ হোয়াইক্যংয়ের এক মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে

নিজস্ব প্রতিবেদক:

টেকনাফের হোয়াইক্যং মহেশখালীয়া পাড়া বাহরুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার সুপার মুফিজ আহমদ ইকবালের অনিয়ম অবহেলায় দুই দাখিল পরীক্ষার্থীর পরীক্ষা দেওয়া হল না ৷ এই বিষয়ে টেকনাফ উপজেলা প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা৷

গত ৬ মার্চ মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে ছাত্রছাত্রীদের ফরম ফিলাপের টাকা আত্নসাতের অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী উর্মিনা আক্তার ও হুমাইয়েরা ইয়াছমিন৷

অভিযোগে উল্লেখ রয়েছে, আমরা মাদ্রাসা সুপার মুফিজ আহমেদ ইকবাল স্যারকে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক ২০২৩ সালের ১২ নভেম্বর নির্ধারিত ফরম ফিলাপের টাকা দিই, তিনি আমাদের ফরম ফিলাপ নিজ ইচ্ছায় অবহেলা বসত বিলম্বিত করে, যার কারণে আমরা দাখিল -২০২৪ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারি নাই এবং আমরা মাদ্রাসায় গেলেও তাকে পায়নি, কল করে ফরম ফিলাপের টাকা ফেরত চাইলে আজকে কালকে দিবে বলে দিচ্ছে না, আমাদের জীবন নষ্ট করেছে এবং টাকা আত্মসাৎ করেছে তাই আপনার আইনানুগ বিচার প্রার্থনা করছি।

এবিষয়ে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আদনান চৌধুরী টিটিএনকে জানান, অভিযোগ তদন্ত করে মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে৷

উল্লেখ্য এনটিআরসিএ অধিভুক্ত সেই প্রতিষ্ঠানে কর্মরত একজন সিনিয়র শিক্ষককে ঐ সুপার মুফিজ আহমেদ ইকবাল পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। এই ব্যাপারে গত ২০২৩ সালের ১৬ জুন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং মাদ্রাসা বোর্ডে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে জানান ভুক্তভোগী শিক্ষক মুফিজুর রহমান৷

উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার কতৃক তফসিলভূক্ত নির্বাচিত কমিটি বোর্ডে অনুমোদন নেওয়ার দায়িত্ব সুপারের থাকা সত্ত্বেও মাদ্রাসা সুপারের অনিচ্ছায় অনুমোদন নেয়নি এবং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত কমিটির সভাপতি, মেয়াদউত্তীর্ণ না হওয়া সত্ত্বেও পরিকল্পিতভাবে নতুন কমিটি করেন বলে জানান মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সদস্য ফয়েজ উদ্দিন জিকু৷

এ নিয়ে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page