Monday, February 26, 2024

সোনাদিয়া দ্বীপে মহেশখালী উপজেলা প্রেসক্লাবের পিকনিক ও মিলনমেলা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক:

‘ঢেউয়ের পর ঢেউ ঝাউয়ের বায়োলিন, চলো ঘুরে আসি, যেখানে মিশে গেছে বন স্বরুপে অমলিন’ স্লোগানে সোনাদিয়া দ্বীপে দুই দিনব্যাপী মহেশখালী উপজেলা প্রেসক্লাবের পিকনিক ও মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গত ৯ ও ১০ ফেব্রুয়ারি (শুক্রবার ও শনিবার) দুইদিন ব্যাপী পিকনিক ও মিলনমেলা মহেশখালী উপজেলা প্রেসক্লাবের একঝাঁক সাংবাদিক সোনাদিয়ার অমলিন সৌন্দর্য উপভোগ করতে করতে সুশৃঙ্খল সুন্দর আলোচনার মাধ্যমে শেষ করেছে।

শুক্রবার সকাল ১০ টায় ঘটিভাঙ্গা ঘাট হতে নদীর বুকে কাঠের বোট চলেছিলো একঝাঁক সাংবাদিক, লেখক ও কবি সাহিত্যিক নিয়ে। ঘন্টাখানেকের মধ্যে সোনাদিয়ায় পৌছে যায়। তাঁবুতে একটুখানি রেস্ট, জুমার নামাজ শেষে দুপুরের খাবার খাওয়া হয়। এরপরই শুরু হয় আলোচনা ও পুরস্কার বিতরণী সভা। বিকেল ২টার দিকে প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আ ন ম হাসানের সঞ্চালনায় ও উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি জে এইচ এম ইউনুসের সভাপতিত্বে সভার কার্যক্রম শুরু হয়।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহেশখালী উপজেলা নির্বাচন অফিসার বিমলেন্দু কিশোর পাল, মহেশখালী থানার এসআই ফরাজুল ইসলাম,সাংবাদিক হারুনুর রশিদ, সাংবাদিক ও লেখক জাহেদ সরওয়ার, সাংবাদিক শাহাবুদ্দিন সহ আরো অনেকে। এছাড়াও সভায় উপজেলা প্রেসক্লাব ২০২৩ সালে সর্বোচ্চ সংবাদ সংগ্রাহক,সর্বোচ্চ অনুসন্ধানী সংবাদ সংগ্রহ ও কর্মস্থলে সফলতা এই তিন ক্যাটাগরিতে তিনটি পুরস্কার প্রদান করেন। এতে কর্মস্থলে সফলতার জন্য জনকণ্ঠের মহেশখালী প্রতিনিধি ফারুক ইকবাল, সর্বোচ্চ সংবাদ সংগ্রহের জন্য দৈনিক শেয়ার বীজের কক্সবাজার প্রতিনিধি এস এম রুবেল ও দ্য টেরিটোরিয়্যাল নিউজ (টিটিএন)’র রিপোর্টার সাইফুল আফ্রিদিকে সর্বোচ্চ অনুসন্ধানী সংবাদ সংগ্রহের ক্রেস্ট প্রদান করেন।

সভা ও পুরস্কার বিতরণ শেষে পূর্বনির্ধারিত শিডিউল অনুসারে ফটোশেসন এবং বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। এতে জোড় আর বিজোড় দুই দল ফুটবল খেলায় অংশগ্রহণ করেন। তবে দুই দলই কোন গোল করতে না পেরে জয়ের স্বাদ ছাড়াই খেলা শেষ করেছে।

বিকেলের খেলা শেষে সূর্যের লাল রঙের আভা ছড়িয়ে পড়ছে দ্বীপে। সাগরের মাছ ধরার জেলেদের নৌকায় জ্বলজ্বল করে জ্বলে উঠছে কুপিবাতি। নেমে এলো সন্ধ্যা।

পরদিন শনিবার কাক ডাকা ভোরে ঘুম ভাঙে সবার। সূর্যের আলো টিকরে পড়ছে ঝাউগাছের ফাঁকে ফাঁকে, সাগরের গর্জন আর বাতাসের শাঁ শাঁ শব্দে সকালের নির্মল বাতাসে ছড়িয়েছে গরম গরম রান্না করা খিচুড়ির হাড়ির ম-ম গন্ধ। পশ্চিম পাড়ার এক স্থানীয়ের বাড়িতেই রান্না করা হয় এসব খিচুড়ি। সকালের খাবার খেয়ে দিকবেদিক ছোটাছুটি করা লাল কাঁকড়ার দলবেঁধে ছোটে চলা দেখতে দেখতে নদীতে জোয়ার এসে পড়ে। ডাক পড়ে মহেশখালী ফেরার। ঘড়ির কাটায় তখন বেলা ১১ টা।

সকলেই সোনাদিয়ার দুই দিনব্যাপী এই আলোচনা সভা ও মিলনমেলা সুন্দরভাবে উপভোগ করে ছেড়ে এলাম নির্জন দ্বীপ সোনাদিয়া। সোনাদিয়া ছেড়ে এলেও যেন বারবার ডাকে তার অনিন্দ্য সুন্দর প্রকৃতি।

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

জনপ্রিয় সংবাদ

You cannot copy content of this page